১১ চৈত্র, ১৪২৩|২৫ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৮|২৫ মার্চ, ২০১৭|শনিবার, সন্ধ্যা ৭:৩১

ডিএসই সূচক গণনা নিয়ে হঠাৎ সন্দেহ, অবিশ্বাস!

682নিউজ ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

বেশ কিছুদিন ধরে স্থিতিশীল পুঁজিবাজার হঠাৎ ঝাঁকুনি খেয়েছে আজ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এর বড় পতনের আশংকা দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থায় হঠাৎ করে এই সূচক গণনা নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম ঊর্ধ্বমুখী থাকা অবস্থায় সূচকের এমন পতনকে ঘিরে তাদের মধ্যে অবিশ্বাস দেখা দিয়েছে। তারা মনে করছেন, ডিএসইতে কোনো কারিগরি ত্রুটির কারণে এমনটি হয়ে থাকতে পারে।

তবে ডিএসই কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের কারিগরি ত্রুটির কথা অস্বীকার করেছেন। তারা বলছেন, বড় বাজারমূলধন ভিত্তিক কোম্পানিগুলোর দর পতনের কারণে এমনটি হয়েছে। সূচকের উপর এসব কোম্পানির প্রভাব বেশি। তাই বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দর বাড়লেও সূচক কমেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডিএসইর একজন কর্মকর্তা বলেন, বাজার মূলধনের দিক থেকে বড় ৩০ কোম্পানির মধ্যে মাত্রা ৪টির শেয়ারের দাম উর্ধমুখী। বাকী সবগুলো দর হারিয়েছে। এমন অবস্থায় দুই তৃতীয়াংশ শেয়ারের দাম বাড়লেও সূচক পতন অনিবার্য।

এদিকে বড় পতনের আশংকায় ব্যক্তি বিনিয়োগকারীদের অনেকেই শেয়ার বিক্রি করে দিতে শুরু করলে এক পর্যায়ে বাজারে দর হারানো কোম্পানির সংখ্যা বাড়তে থাকে। বেলা সোয়া একটা নাগাদ ডিএসইতে ২৭৬টি কোম্পানির শেয়ার কেনাবেচা হয়। ওই সময় পর্যন্ত ১২১ কোম্পানির শেয়ারের দাম ছিল আগের দিনের চেয়ে বেশি, ১৩২টির দর ছিল কম। আর ৫৩টির দর ছিল অপরিবর্তিত। তবে এ সময়ে সূচক কিছুটা পুনরুদ্ধার হয়। বেলা ১২টা ৩৭ মিনিটে ডিএসইএক্স যেখানে আগের দিনের চেয়ে প্রায় ৫৮ পয়েন্ট কম ছিল, সেখানে সোয়া একটা নাগাদ ৪১ পয়েন্টে উঠে আসে।

আগের কয়েকদিনের মতো, রোববারও ডিএসইতে শীর্ষ ২০ কোম্পানির তালিকা দখল করে আছে তুলনামূলক ছোট কোম্পানিগুলো। এদের কোনো কোনোটির মৌলভিত্তিও ভাল নয়। কিন্তু এ তালিকার বেশির ভাগ শেয়ারের দামই উর্ধমুখী। এটি দেখেই বিনিয়োগকারীদের অনেকে বিভ্রান্ত হয়েছেন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা সূচক না দেখে সংশ্লিষ্ট শেয়ারের দাম এবং মৌলভিত্তির আলোকে বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

 

বিষয়বস্তু:
Share.

Leave A Reply