উপস্থাপনাতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি : ফারহানা নিশো

বিনোদন ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: ‘উপস্থাপনা খুব সহজ কাজ নয়। অনেক বুঝেশুনে কাজটা করতে হয়। প্রতিটি অনুষ্ঠানের ধরন ভিন্ন থাকে, তাই নিজেকে উপস্থাপনও করতে হয় ভিন্নভাবে। উপস্থিত বুদ্ধি ও অনুষ্ঠান সম্পর্কে ভালোভাবে জানাটাও খুব জরুরি।’ একটানা কথাগুলো বললেন জনপ্রিয় উপস্থাপক ও সংবাদপাঠিকা ফারহানা নিশো। সাবলীল উপস্থাপনা দিয়ে অনেক আগেই দর্শকের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন তিনি। জিটিভির গেম শো ‘কিউট : আজকের অনন্যা’ উপস্থাপনা করেছেন তিনি।

অনুষ্ঠানটি যেহেতু গেম শো, ছোটবেলায় আপনি কেমন খেলোয়াড় ছিলেন? জানতে চাইলে ফারহানা নিশো বলেন, ‘আমি যখন স্কুলে পড়তাম, তখন অনেক খেলাধুলা করতাম। খেলার অনেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে পুরস্কারও পেয়েছি’।

তাহলে অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করতে আপনি কি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন? জবাবে ফারহানা নিশো বলেন, ‘হ্যাঁ করছি, তবে একটু চ্যালেঞ্জিংও মনে হচ্ছে। কারণ, গেম শোর ফলাফল আগে থেকে নির্ধারিত থাকে না। যা কিছু ঘটছে, সবই উপস্থিত। মজাও পাচ্ছি।’

উপস্থাপনা তো রয়েছেই, সংবাদপাঠিকা ও মডেল হিসেবেও আপনি সমান জনপ্রিয়। এর পেছনে রহস্য কী? প্রশ্ন শুনে চটজলদি উত্তর দিলেন নিশো, ‘আমি যখন যেটা করি, সেটা মন দিয়ে করার চেষ্টা করি। উপস্থাপনার সময় আমি একরকম, আবার সংবাদ পড়ার সময় আমি একেবারে বদলে যাই। তখন শুধু আমি সংবাদের মধ্যে ডুবে থাকি।’

২০০৩ সালে হুমায়ূন আহমেদের একটি নাটকে আপনি অভিনয় করেছিলেন। অভিনয়ে নিয়মিত না হওয়ার কারণ কী? ‘হুমায়ূন আহমেদ স্যারের সঙ্গে কাজ করার আগ্রহ কমবেশি সবার ছিল। আমার মধ্যেও ছিল। তাই প্রস্তাব পাওয়ার পর কাজটা করেছি। এর পর অভিনয়ের অনেক প্রস্তাব পেলেও ফিরিয়ে দিয়েছি। আমার কাছে মনে হয়, একটা মানুষ সবকিছু করতে পারে না। সবকিছু করতে চাইলে শেষ পর্যন্ত কোনোটাই ভালোভাবে করা হয় না। উপস্থাপনা করতেই আমি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি।’

নতুন যাঁরা উপস্থাপনা করছেন, তাঁদের উদ্দেশে কোনো পরামর্শ দেবেন কি না—জানতে চাইলে নিশো বলেন, ‘তেমন কিছু নেই। ভালোবেসে কাজটা করতে হবে। শুদ্ধ উচ্চারণে সচেতন এবং যে অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করা হবে, সে বিষয়টি সম্পর্কে পড়াশোনা করতে হবে।’

Share.

Leave A Reply