‘সৈয়দ মহসীন আলী ছিলেন সততার অনন্য দৃষ্টান্ত’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী ছিলেন সততার অনন্য দৃষ্টান্ত। গণমুখী এ রাজনীতিক ছিলেন একজন দানবীর। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত এ রাজনীতিক এখনও তার নিজ এলাকা মৌলভীবাজারবাসীর হৃদয়ে জাগরুক। ১৭ মে ২০১৬ মঙ্গলবার রাজধানীর মিন্টো রোডের মন্ত্রীপাড়ায় সৈয়দ মহসীন আলী স্মরণে এক দোয়া অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বক্তারা। দোয়া অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মন্ত্রীর জামাতা ও আওয়ামী লীগ নেতা ব্যবসায়ী মোশাররফ পাটওয়ারী।

অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ ও মানবসেবায় সৈয়দ মহসীন আলীর অবদানের কথা স্মরণ করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি আল্লাহ তাআলা’র দরবারে মরহুমের জন্য জান্নাতুল ফেরদাউস কামনা করেন।

চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বলেন, সৈয়দ মহসীন আলী ছিলেন একজন গণমুখী রাজনীতিক। তিনি নিজে যা খেতেন মানুষকে তাই খাওয়াতেন। এই রাজনীতিক ছিলেন একজন সত্যিকারের দানবীর। নিজের সম্পদ দান করার মধ্যে যে কি আনন্দ সেটা মহসীন আলী আমাদের করে দেখিয়েছেন। মানুষকে দান করে তিনি যে খুশি হতে তা প্রকাশের ভাষা আমাদের জানা নেই। সমাজের কল্যাণে তিনি কাজ করেছেন। এমনকি নিজের বাসায় তিনি দুঃস্থ মানুষের জন্য হাসপাতাল বানিয়েছেন। নিজ নির্বাচনি এলাকার বাইরেও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মানুষদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন। তাঁর সততার ব্যাপারে কারও কোনও রকম সন্দেহ ছিল না। তাঁর সঙ্গে যখন বসতাম; তখন দেখতাম কিভাবে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের কথা ভাবেন। মুক্তিযোদ্ধাদের সার্টিফিকের্ট প্রদানের ব্যাপারেও তিনি যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন বলেন, মৌলভীবাজারের সন্তান হিসেবে আমার সৈয়দ মহসীন আলী’র সঙ্গে মেশার সুযোগ হয়েছিল। ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় তিনি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কথা বলতেন। যুদ্ধের সময়ে তার হাতে যে গুলির দাগ লেগেছিল তাও দেখিয়েছেন আমাদের।

মরহুম মন্ত্রীর স্ত্রী সৈয়দা সায়রা মহসিন তার বক্তব্যে সৈয়দ মহসিন আলীর জান্নাত কামনা করেন। তিনি তাকে মৌলভীবাজার-৩ আসনের (মৌলভীবাজার সদর-রাজনগর) উপনির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ায় জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানান মৌলভীবাজারবাসীকে।

মন্ত্রীর দ্বিতীয় জামাতা মোশাররফ পাটওয়ারী বলেন, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে এ দেশের একজন স্বনামধন্য রাজনীতিক সৈয়দ মহসীন আলী ইন্তেকাল করেন। জীবদ্দশায় তিনি সবসময় মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। এমনকি নিজের পৈত্রিক সম্পত্তি বিক্রি করেও তিনি মৌলভীবাজারবাসীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। আজ তার মৃত্যুর পর এই নেতার প্রতি মানুষের নিঃস্বার্থ ভালোবাসার নির্দশন আমরা দেখতে পাচ্ছি। মৌলভীবাজারে তার জানাজায় অংশ নেওয়া লাখো মানুষ কোনও দুনিয়াবি স্বার্থে সেখানে যাননি। আজকের এ দোয়ায় যারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছেন তাদের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। এটাই একজন সত্যিকারের দেশপ্রেমিক রাজনীতিকের অর্জন।

দোয়া অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সৈয়দ মহসীন আলী’র বিভিন্ন রাজনৈতিক সহকর্মী, সংসদ সদস্য, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সাত্তার প্রমুখ।

আরও পড়তে পারেন: সৈয়দ মহসিন আলী ও আমাদের প্রত্যয়

Share.

Leave A Reply