ভারতে গরুর মূত্রমিশ্রিত পণ্যের বিরুদ্ধে ফতোয়া

মুহম্মদ পাঠান সোহাগ, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

গো-মূত্রমিশ্রিত পণ্য ব্যবহারের বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করেছেন ভারতের উত্তর প্রদেশের বেরেইলি জেলার দরগা-ই-আলা হজরত নামের একটি দরগার শীর্ষ আলেমরা। টাইমস অব ইন্ডিয়ার (টিওআই) সোমবারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গরুর মূত্রমিশ্রিত পণ্য ব্যবহারে ইসলামে কোনো নিষেধ আছে কি না, তা দরগারটির শীর্ষ আলেমদের কাছে জানতে চান বেরেইলির এক বাসিন্দা। তখন এই ফতোয়া জানানো হয়। ফতোয়ায় বলা হয়েছে, শরিয়ত মতে এ জাতীয় পণ্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

এনডিটিভির এক খবর থেকে জানা যায়, ভারতের যোগগুরু রামদেবের কোম্পানি পতঞ্জলির ৭০০ আয়ুর্বেদিক পণ্যের মধ্যে পাঁচটিতে গো-মূত্রের মিশ্রণ আছে। এর মধ্যে তিনটি পণ্য বাহ্যিকভাবে ও দুটি খেতে পরামর্শ দেয় কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এ জাতীয় পণ্যের বিরুদ্ধে আলেমরা সোচ্চার হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

পতঞ্জলির গো-মূত্রমিশ্রিত পাঁচটি পণ্য হচ্ছে—‘কয়াকাল্প তৈল’, ‘পঞ্চভাগ্য’ (সাবান), ‘শুধি’ (ফিনাইল), ‘গোধান অর্ক’ ও ‘সঞ্জীবনী ভাতি’।

টিওআইর প্রতিবেদনে বলা হয়, দরগা-ই-আলা হজরতের দুই আলেম এই ফতোয়া দিয়েছেন। তাঁরা হলেন দরগার প্রধান আলেম মুফতি মুজাফ্ফর ও তাঁর সহযোগী মুফতি কাউশাল আলী রাজভি।

দরগার গণমাধ্যম সমন্বয়ক মাওলানা শাহাবুদ্দিন রাজভি বলেন, ‘শরিয়ত মতে কোনো মুসলমানের গো-মূত্রমিশ্রিত পণ্য ব্যবহার করা উচিত নয়। গো-মূত্র অপবিত্র বলে বিবেচনা করা হয়। এক কোম্পানি এই জাতীয় পণ্য উৎপাদন করে থাকে। সে বিষয়ে আলেমরা জানিয়েছেন, এ ধরনের কোনো পণ্য খাওয়া, পান করা বা শরীরে বাহ্যিকভাবে ব্যবহার করা নাজায়েজ।’

Share.

Leave A Reply