২৭০ কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন বর্তমানের মিজানুর!

নিউজ ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের প্রিন্সিপাল শাখা থেকে ২৭০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে ‘দৈনিক বর্তমান’ পত্রিকার সম্পাদক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে। এই অভিযোগ যাচাই-বাছাই শেষে যথাযথ বলে মনে হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বুধবার (১৮ মে) সরকারি ব্যাংকের এই বিপুল টাকা আত্মসাতের অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। একই সঙ্গে দুদকের উপপরিচালক বেনজীর আহম্মদের নেতৃত্বে দুই সদস্যের অনুসন্ধান টিম গঠন করা হয়। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দুদকে আসা অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আলহাজ্ব মিজানুর রহমান তার মালিকানাধীন তিনটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান মেসার্স মুন ইন্টারন্যাশনাল প্রেন্টিং প্রেসের অনুকূলে ৪৯ কোটি টাকা, মেসার্স মুন বাংলাদেশ লিমিটেডের অনুকূলে ১৪১ কোটি টাকা ও মেসার্স এম এর ট্রেডিংয়ের অনুকূলে ৮০ কোটি টাকাসহ মোট ২৭০ কোটি টাকা মতিঝিল শাখা (প্রিন্সিপাল) থেকে ঋণ হিসেবে গ্রহণ করেন। যদিও কাগজপত্রে তিনি ৮১০ কোটি টাকার জামানত দেখিয়েছেন। তবে প্রকৃতপক্ষে জামানতকৃত এসব মর্টগেজ সবই জাল ও ভুয়া। সরকারি জমির ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে ৮১০ কোটি টাকার মর্টগেজ দেখানো হয়েছে। পরবর্তীতে ওই ৩টি ভুয়া কোম্পানির অনুকূলে নেয়া এসব টাকা ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের যোগসাজশে আত্মসাত করেন।

দুদকে আসা এসব অভিযোগ যাচাই শেষে অনুসন্ধানে নামে সংস্থাটি। এজন্য দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনকে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করে দুই সদস্যবিশিষ্ট অনুসন্ধানী টিম করে কমিশন। ওই টিমের অপর সদস্য হলেন, দুদকের উপসহকারী পরিচালক মো. জিন্নাতুল ইসলাম।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে মিজানুর রহমান একটি মামলায় কারাবন্দি আছেন। কার্টিসি: বাংলামেইল।

Share.

Leave A Reply