ক্ষুধা-তৃষ্ণা এড়াতে সেহরিতে রাখুন ১০ খাবার

লাইফস্টাইল ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

রোজার দিনগুলোতে সেহরিতে কী খাচ্ছেন তার ওপর নির্ভর করে আপনি সারাদিনে কতটা ফিট থাকতে পারবেন। আমাদের দেশে সময়টা এখন গ্রীষ্মকাল। দিনও বড়। তাই সেহরিতে এমন খাবার রাখুন যা হজম হতে দীর্ঘ সময় লাগে। আবার এমন কিছু খাবার রয়েছে যা দ্রুত হজম হয়ে যায় ও পানির তৃষ্ণা বাড়ায়। তাই সেহরিতে এমন খাবার খান যা আপনার ক্ষুধা-তৃষ্ণাকে সংবরণ করতে পারে।

জেনে রাখুন, সেহরির উপযোগী ১২টি খাবারের কথা।

ওটমিল:

হাই ফাইবার জাতীয় খাবার দেহকে পরিপূর্ণ রাখে দীর্ঘ সময় পর্যন্ত। কারণ, এটি হজম হয় অনেক সময় নিয়ে। ওটমিল কমপ্লেক্স কার্বনের উৎকৃষ্ট পছন্দ। পাস্তা ও বাদামি চালের ভাতে প্রচুর ফাইবার থাকে। যা পরের দিন আপনাকে উদ্যমী রাখে।

ডাল

হাই ফাইবার ও প্রোটিনের খুব ভালো উৎস ডাল। সেহরিতে এক কাপ ডাল খেতে পারলে ভালো। তবে অনেকে ডাল হজম করতে পারেন না। এমন হলে খাবেন না। যাদের বিভিন্ন ব্যথার সমস্যা রয়েছে তারাও ডাল খাওয়‍া থেকে বিরত থাকুন।

খেজুর

রোজার সময় সবার ঘরেই খেজুর মজুদ থাকে। সেহরিতে টপাটপ কিছু খেজুর মুখে দিন।

ডিম

ডিমে রয়েছে উচ্চমানের প্রোটিন ও লো ক্যালরি।

বাদাম

আমন্ড ও আখরোট ক্যালরি, পুষ্টি ও প্রোটিনের চমৎকার উৎস। প্রতিদিন একমুঠ করে বরাদ্দ রাখুন।

আপেল ও কলা

আপেলে উচ্চমানের ফাইবার ও পানি পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে। অন্যদিকে কলায় রয়েছে প্রচুর পটাশিয়াম।

অ্যাভোকাডো

সবুজ অ্যাভোকাডোতে প্রচুর পুষ্টি ও হেলদি ফ্যাট থাকে। এর চর্বিতে দ্রবণীয় ভিটামিন সারাদিন আপনাকে ক্ষুধা-তৃষ্ণা অনুভব করতে দেবে না।

ফল ও সবজি

শুধুমাত্র ফাইবার সমৃদ্ধ সবজি বা ফল নয়, গ্রীষ্মকালে রোজায় পানি সমৃদ্ধ সবজি ও ফল খান। এগুলো দীর্ঘ সময় পর্যন্ত আপনাকে শক্তি দেবে।

টকদই

ঘুম থেকে উঠার পর স্বাভাবিক যে পানি পিপাসা পায় তা থেকে মুক্তি দেবে টেস্টি এ খাবার। ইচ্ছে হলে পানিপূর্ণ ফল ও টকদই একসঙ্গে খান। খেতে ভালো, উপকারীও।

শসা

শসার ৯০ শতাংশই পানি। দই বা হুম্মাসের উপর ছড়িয়ে দিন কিছু শসা কুচি। এটি আপনাকে সারাদিন হাইড্রেটেড রাখবে।

যা খাবেন না-

  • চিনিপূর্ণ খাবার
  • ক্যাফেইন
  • পেস্ট্রি
  • লবণাক্ত খাবার
  • বেকড পটেটোর মতো ড্রাই ফুড
  • অতিরিক্ত ঝাল খাবার।
Share.

Leave A Reply