তুরস্কের বিমানবন্দরে ২ ‘দায়েশ জঙ্গি’ আটক

মুহম্মদ পাঠান সোহাগ, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:
তুরস্কের ইস্তানবুলের আতাতুর্ক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে জঙ্গিগোষ্ঠী দায়েশের (আইএস) সন্দেহভাজন সদস্য দুই কিরগিজ নাগরিককে আটক করেছে পুলিশ। বিমানবন্দরটিতে রক্তক্ষয়ী আত্মঘাতী গুলি ও বোমা হামলার ঘটনার এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে সেখান থেকেই এ দুজনকে আটক করা হলো। ২৮ জুনের হামলায় জড়িত বলে তিন সন্দেহভাজনের একজনও কিরগিজ বলে উল্লেখ করেছিলেন সরকারি কর্মকর্তারা।
তুর্কি বার্তা সংস্থা দোগান জানায়, আতাতুর্ক বিমানবন্দর থেকে রোববার রাতে আটক দুই কিরগিজ নাগরিকের পুরো নাম প্রকাশ করা হয়নি। শুধু নামের আদ্যক্ষর হিসেবে কে ভি এবং এফ এম আই উল্লেখ করা হয়েছে। তাঁদের বয়স যথাক্রমে ২৫ ও ৩৫ বছর।
আটকের পর এ দুজনের স্যুটকেস থেকে রাতে দেখার উপযোগী দুরবিন, সামরিক ধাঁচের পোশাক ও ভিন্ন নামের দুটি পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। ইস্তানবুলের সন্ত্রাস দমন পুলিশ তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তাঁরা বিমানবন্দর ছাড়ছিলেন, নাকি বিমানবন্দর হয়ে তুরস্কে ঢুকছিলেন সেটি স্পষ্ট নয়।
এদিকে আতাতুর্ক বিমানবন্দরে গত ২৮ জুনের গুলিবর্ষণ ও বোমা হামলার ঘটনায় তিন বিদেশিসহ সন্দেহভাজন ১৩ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। ওই হামলায় ৪৫ জন নিহত হন, যাঁদের মধ্যে ১৯ জন বিদেশি। হামলায় আহত হন ২০০ জন।
Daesh_The Dhaka Report
তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদিরিম রোববার বলেন, বিমানবন্দরে হত্যাযজ্ঞ চালানোর ঘটনায় পুলিশ বিদেশিসহ ২৯ জনকে আটক করেছে। কর্মকর্তাদের ধারণা, ওই ঘটনার জন্য আইএস দায়ী। তুরস্কের বৃহত্তম শহর ইস্তানবুলে এ বছর যেসব সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে এটাই ছিল সবচেয়ে বড় ও প্রাণঘাতী।
তুর্কি কর্তৃপক্ষের ধারণা, রাশিয়া, উজবেকিস্তান ও কিরগিজস্তানের তিন নাগরিক ওই হামলা চালান। ইতিমধ্যেই তাঁদের সিসিটিভি থেকে পাওয়া ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। দুজনের নাম প্রকাশ করেছে তুর্কি সরকারি বার্তা সংস্থা আনাদোলু। এঁরা হলেন, রাকিম বুলগারভ ও ভাদিম ওসমানভ।
তুরস্কের গণমাধ্যম ওই হামলার সংগঠক হিসেবে আখমেদ চাতায়েভ নামে এক ব্যক্তির কথা উল্লেখ করে খবর প্রকাশ করেছে। তিনি আইএসের ইস্তানবুলে শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন।
মালয়েশিয়ার নাইট ক্লাবে হামলায় আইএস জড়িত:
রয়টার্স জানিয়েছে, মালয়েশিয়ার কর্তৃপক্ষ সোমবার (৪ জুলাই) নিশ্চিত করেছে যে গত সপ্তাহে দেশটির একটি নাইট ক্লাবে গ্রেনেড হামলায় আইএস জড়িত। এটি দেশটিতে এই গোষ্ঠীর প্রথম সফল হামলা বলে মনে করা হচ্ছে।
মালয়েশীয় পুলিশের মহাপরিদর্শক খালিদ আবু বকর গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হামলায় সম্পৃক্ত দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা আইএসের মালয়েশীয় যোদ্ধা বলে পরিচিত মোহাম্মদ ওয়ান্ডি মোহাম্মদ জেদির সরাসরি নির্দেশনা পেয়েছিলেন।

Share.

Leave A Reply