২৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪|২৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯|১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭|বুধবার, রাত ১২:০৫

পিস টিভির বাংলা ওয়েবসাইটও বন্ধ

নিউজ ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

বিশ্ববরেণ্য ইসলামী চিন্তাবিদ ড. জাকির নায়েকের পিস টিভির বাংলা ওয়েবসাইটও বন্ধ করেছে বাংলাদেশ সরকার। এর আগে সরকারিভাবে চ্যানেলটির ডাউন লিংকের অনুমতি বাতিল এবং অনলাইন ও সোশ্যাল মিডিয়ায় এর সম্প্রচার বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ মঙ্গলবার জানান, উপরের নির্দেশনা অনুসারে পিস টিভি বাংলার ওয়েবসাইট বন্ধের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ওয়েবসাইটটি বন্ধে রাতেই বিটিআরসি আদেশটি জরুরিভিত্তিতে সব মোবাইল ফোন অপরারেটর ও ইন্টারনেট গেটওয়েকে পাঠায়।

গুলশান হামলাকারীদের মধ্যে দুইজন ফেসবুকে জাকির নায়েককে অনুসরণ করত বলে অভিযোগ ওঠার পর জাকির নায়েক ও পিস টিভির ব্যাপারে কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখায় বাংলাদেশ ও ভারতের কর্তৃপক্ষ। দুই দেশেই বন্ধ করে দেওয়া হয় পিস টিভির সম্প্রচার। যদিও গোয়েন্দা সংস্থার বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, ইউটিউব থেকে জাকির নায়েকের শতাধিক লেকচার যাচাই করে তাঁর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী বক্তব্যের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ১২ জুলাই ২০১৬ ভারতের ‘দ্য হিন্দু’ এবং ‘জি নিউজ’-এ এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এদিকে ফেসবুকে দুই বিভ্রান্ত তরুণের জাকির নায়েককে অনুসরণ করার অভিযোগ উঠার পর আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি বাংলাদেশে পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়। এর পরদিনই সোমবার বাংলাদেশে তার পিস টিভির ডাউন লিংকের অনুমতি বাতিল করে সরকার। এরপর অনলাইন এবং সামাজিক মাধ্যমেও এই টিভির সম্প্রচার বন্ধের ঘোষণা দেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান।

টিভিতে সম্প্রচার বন্ধ হলেও ইন্টারনেটে বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইটে এই টিভি লাইভ সম্প্রচার করে আসছিল। এছাড়া ইউটিউবেও এই টিভির লাইভ সম্প্রচার হয়; রয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের ভিডিও। ফেসবুকে এই টিভির একাধিক পেজ রয়েছে।

সিদ্ধান্তের ব্যাখ্যায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, “পিস টিভি বহু ক্ষেত্রে মুসলমান সমাজের কুরআন, সুন্নাহ, হাদিস, বাংলাদেশের সংবিধান, দেশজ সংস্কৃতি, রীতি-নীতি, আচার-অনুষ্ঠানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ না।”

অন্যদিকে মঙ্গলবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মহারাষ্ট্র স্টেট ইন্টেলিজেন্স ডিপার্টমেন্ট (এসআইডি)- থেকে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী বক্তব্যের অভিযোগ নাকচ করে দেওয়া হয়েছে। বরং এ ধরনের অভিযোগ থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়ার পক্ষেই প্রতিবেদন দিয়েছে সংস্থাটি।

এসআইডির একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা ও হায়দরাবাদের ঘটনায় সন্ত্রাসীদের অনুপ্রাণিত করতে পারে বা কোনও সন্ত্রাসী-সংক্রান্ত কার্যক্রমের সঙ্গে জাকির নায়েকের সংযোগ আছে এমন কোনও শক্তিশালী তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এমনকি তার শক্তিশালী ধর্মীয় তত্ত্ব কাউকে তালেবান, আল-কায়েদা বা আইএসের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ যোগসূত্র তৈরি করাতে পারে; এমন কোনও প্রমাণ আমাদের কাছে নেই।

Share.

Leave A Reply