দুর্গাপূজার বৃহত্তম আয়োজন উপলক্ষে লিটন শিকদারের একক অ্যালবাম

সজীব শাহরিয়ার, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম:

বাগেরহাটের সন্তান লিটন শিকদার। একাধারে ব্যবসায়ী, কবি, গীতিকার ও সমাজসেবক। সংস্কৃতিসেবী হিসেবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয়া দুর্গা পূজা উপলক্ষে সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের বৃহৎ দুর্গাপূজার আয়োজন করেন। খুলনার বাগেরহাটের হাকিমপুরের শিকদার বাড়ি মন্দিরে এ আয়োজন হয়। শারদীয় দুর্গা পূজার আয়োজন ও গীতিকার হিসেবে তার প্রথম অ্যালবাম নিয়ে সম্প্রতি তার সঙ্গে কথা হয়।

আপনার অ্যালবামের বিষয়ে জানতে চাই?

লিটন শিকদার: আমি গত ছয় মাস ধরে গান লিখছি। এ পর্যন্ত ৫০টির অধিক গান লিখেছি। এর মধ্যে ১০টি গান নিয়ে ‘বলছি তোমায় মন থেকে’ নামে একটি অ্যালবাম এবারের পূজা উপলক্ষে বাজারে আসছে। দেবু রায়ের গাওয়া অ্যালবামের সব গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করছেন এম আর মিজান। এতে আমাদের দেশের নাটক ও চলচ্চিত্র জগতের স্বনামধ্য মানুষেরা কাজ করছেন।

আপনি তো কবিতাও লেখেন?

লিটন শিকদার:  নিজের ভাললাগা থেকেই কবিতা লিখি। এ পর্যন্ত দুই শতাধিক কবিতা লিখেছি এক হাজারটি কবিতা লেখা হয়ে গেলে বই বের করার ইচ্ছে আছে।

বাগেরহাটে ব্যক্তিগত উদ্যোগে দূর্গাপুজার আয়োজন বিষয়ে জানতে চাই?

লিটন শিকদার: দেখুন আমাদের হিন্দু ধর্মে ৩৩ কোটি দেব দেবী আছে। আমার মনে হয় এসবের মধ্যে সর্বাধিক ৫ শতটির নামও অনেকেই  জানেন না। আমি আমার সাধ্যমতো সর্বাধিক দেব-দেবীর প্রতিমা নির্মাণ করে পূজা অর্চনার আয়োজন করি। তাছাড়া আমাদের কিছু কালেকশনের প্রদর্শনী এবং হিন্দু ধর্মের মানুষ যাতে আরও বেশি  দেব দেবীর বিষয়ে অবগত হতে পারে সে জন্যই এ আয়োজন। এটা সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়োজন বলে মনে করি।

এবারের পূজায়  কত সংখ্যক প্রতিমা আছে?

লিটন শিকদার: এবার আমরা চার যুগের ৬০১টি দেব-দেবীর প্রতিমা নির্মাণ করেছি।  এছাড়া  মন্দিরের পাশে পুকুরের মাঝখানে ৪০ ফুট উচু প্রতিমাটি কৈলাশ পর্বতের অংশ বিশেষ স্থাপন করেছি। যার সবার উপরে রয়েছে মহাদেব এবং নিচে রামচন্দ্র, লক্ষণ, সীতা ও হনুমান। আমি আশা করি এই আয়োজন ভক্তদের কাছে বিশেষভাবে আকৃর্ষিত হবে। প্রতি বছর একাধিক মন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানাই। এবারও উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, ঢাকা ১৬ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা, বাগেরহাট-২ এর সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ইসমত কাদীর গামা।

এ আয়োজনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কেমন?

লিটন শিকদার: আমাদের এ আয়োজন সরাসরি মনিটর করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, র‌্যাব, বাগেরহাট পুলিশ সুপার, ব্যাপক সংখ্যক আনসার নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন। পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে দুই শতাধিক ভলান্টিয়ার এ আয়োজনের নিরপত্তায় সর্বদা সজাগ রয়েছেন। শতাধিক সিসি ক্যামেরায় সার্বিক আয়োজন মনিটর করা হচ্ছে। সব মিলে এলাকা জুড়ে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলবৎ রাখা হয়েছে।

এখানে তো ব্যাপক সংখ্যক মানুষ কাজ করছে?

লিটন শিকদার: হ্যাঁ। অবশ্যই ৬০১টি প্রতিমা নির্মাণ এবং বিসর্জনের পর পর্যন্ত পূজা অর্চনায় ভক্তদের সহায়তা এবং শৃঙ্খলা রক্ষণ ও তত্ত্বাবধানে কয়েকশ’ লোক নিয়োজিত আছেন। এছাড়া প্রতিমা নির্মাণে চারুকলার ১০/১৫ জন ছাত্র এখানে এক্সপেরিমেন্ট করার সুযোগ পাচ্ছেন।

এত বড় আয়োজনে প্রেরণা এবং সহযোগিতা পেয়েছেন কার কাছে?

লিটন শিকদার: প্রথমত বাবা-মা, তারপর সহ ধর্মিনী পূজা শিকদারের প্রেরণা। এছাড়া ভাই অসীম শিকদার, শিশির শিকদারের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণে এ আয়োজন সুসম্পন্ন হতে চলেছে। পাশাপাশি মন্দিরের স্থানীয় ভক্তরাও বেশ সহযোগিতা করছেন।

Share.

Leave A Reply