৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪|২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯|২২ নভেম্বর, ২০১৭|বুধবার, রাত ১:৩১

রঙ তুলির নিভৃত কারিগর ভিপি রায়

নিজস্ব প্রতিবেদক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজে এমবিবিএস পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী ভিপি রায়। তবে আর দশজনের মতো মেডিক্যালের ভারী ভারী বই নিয়েই পড়ে থাকা একদম পছন্দ নয় তার। কখনো নিভৃতে মনের মাধুরী মিশিয়ে রঙ তুলির ছোঁয়ায় ফুটিয়ে তোলেন মানব জীবনের নানা বৈচিত্র্যপূর্ণ দিক। আবার কখনো ব্যস্ত নাটক পরিচালনায়। এ মুহূর্তে নির্মাণ করছেন মেডিক্যাল শিক্ষা অবলম্বনে নাটক ‘থ্রি পি কথন’।

ঠাকুরগাঁওয়ের ছেলে ভিপি রায়ের বাবা সুরেশ চন্দ্র রায় পেশায় একজন ফার্মেসি ব্যবসায়ী। মা নমিতা রাণী রায় স্কুলশিক্ষিকা। ২০১০ সালে পীরগঞ্জ পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাসের পর ভর্তি হন সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজে। এখানে অধ্যয়নরত অবস্থায় ২০১১ সালে বাংলাদেশ কেমিস্ট্রি অলিম্পিয়াডে রংপুর অঞ্চলে দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন। এইচএসসি’র পর ঢাকায় চলে আসেন। ভর্তি হন সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজে।

২০১২ সালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি কর্তৃক আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতায় জাতীয় পর্যায়ে সেরা পাঁচের তালিকায় স্থান পান ভিপি রায়।

মেডিক্যাল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সন্ধানীর সঙ্গেও যুক্ত ভিপি রায়। ২০১৩ সাল থেকে এ সংগঠনটির হয়ে কাজ করছে সে। বর্তমানে সংগঠনটির সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক। এছাড়া ক্যাম্পাসের সাংস্কৃতিক সংগঠন দ্য বিটস-এর ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন নিভৃতের এ শিল্পী।

বন্ধুদের সাথে আড্ডায় রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রেম, জীবন ও দর্শন নিয়ে তুমুল বিতর্ক জুড়ে দেন বইপোকা ভিপি রায়। পছন্দের লেখকের তালিকায় আছেন হুমায়ুন আহমেদ, সমরেশ মজুমদার প্রমুখ। রবীন্দ্রসংগীতের ভক্ত। প্রয়াত কণ্ঠশিল্পী আবিদের গান পছন্দ। স্বপ্ন দেখেন; ভালোবাসেন নিজের আঁকা ছবি দিয়ে মানুষকে স্বপ্ন দেখাতে। ইচ্ছা আছে সার্জারি নিয়ে উচ্চতর পড়াশোনা করার।

Share.

Leave A Reply