শুভ জন্মদিন নাহিদা আশরাফী

নিজস্ব প্রতিবেদক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: বরেণ্য কবি ও কথাসাহিত্যক নাহিদা আশরাফীর জন্মদিন ১ মার্চ। শুভ জন্মদিন নাহিদা আশরাফী। ১৯৭৩ সালের এই দিনে তিনি পটুয়াখালীর নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার দাদাবাড়ি বরিশালের বাকেরগঞ্জে।

কবি নাহিদা আশরাফী বর্তমানে সাংবাদিকতা, স্টেজ শো এবং উপস্থাপনার সঙ্গে যুক্ত আছেন। তার কর্মজীবন শুরু ৯০-এর দশকে। স্কুলছাত্রী থাকা অবস্থাতেই ওই সময়ে বিটিভিতে নতুন কুঁড়ি অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতেন। মাস্টার্স সম্পন্ন হওয়ার পর ২০০৮ সালে বাংলাদেশ পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দেন। ২০১২ সালে যোগ দেন ঢাকার একটি বেসরকারি কলেজে। সর্বশেষ ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে লাইফস্টাইল ও বিনোদন বিষয়ক ম্যাগাজিন নন্দিনী’র সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আশরাফ আলী মৃধা ও নিলুফা আশরাফ দম্পতির দুই সন্তানের মধ্যে নাহিদা আশরাফী বড়। ছোট ভাই অস্ট্রেলিয়ায় রিয়েল এস্টেট সেক্টরে যুক্ত আছেন।

বাবা বাংলাদেশ এগ্রিকালচার ডেভেলপমেনট করপোরেশনের (বিএডিসি) নির্বাহী প্রকৌশলী ছিলেন। মা গৃহিনী। বাবার চাকরির সুবাদে শৈশব কৈশোরে বর্ণাঢ্য সময় কেটেছে তার। এইচএসসি সম্পন্নের আগেই বাংলাদেশের প্রায় সবকটি জেলা ঘোরা হয়েছে তার। বাবা সরকারি দায়িত্বে থাকার ফলে যখনই যেখানে ট্যুরে যেতেন কন্যাকে সঙ্গে নিয়ে যেতেন। যার ফলে এখনও খুব সহজেই মানুষকে আপন করে নিতে পারেন এই কথাশিল্পী।

কবির শৈশব-কৈশোরের বেশিরভাগ সময় কেটেছে মাদারীপুরে। এখান থেকেই এসএসসি, এইচএসসি সম্পন্ন করেন। স্কুলজীবনে যশোর ও রাজবাড়ীতেও চমৎকার সময় কেটেছে তার।

মাদারীপুর ডনোভান গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল থেকে এসএসসি পাসের পর ভর্তি হন মাদারীপুর সরকারি নাজিমউদ্দিন কলেজে। এরপর কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। এরপর অলিয়স ফ্রাসেজে ফ্রেঞ্চ ল্যাঙ্গুয়েজ নিয়ে পড়াশুনা করেন।

নাহিদা আশরাফী দ্য ঢাকা রিপোর্টকে জানান, তার প্রিয় রঙ লাল-সবুজ। প্রিয় খাবার মিষ্টি। প্রিয় ফল আম লিচু। পছন্দের পোশাক শাড়ি। প্রিয় লেখক নজরুল ইসলাম, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জীবনানন্দ দাস। প্রিয় ঋতু বর্ষা। বৃষ্টিতে রিকশায় ঘুরতে ভীষণ পছন্দ তার।

মুভি দেখতে, গান শুনতে খুব পছন্দ করেন। আর্ট ফিল্ম আর হলিউড মুভির প্রতি বাড়তি টান আছে তার। সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে রয়েছে দীর্ঘ বিচরণ। বিশ্ববিদ্যালয় থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন টানা তিন বছর। পছন্দের অভিনেতা টম হ্যাংকস, জনি ডেপ। অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন, ফেরদৌসী মজুমদার।

নাহিদা আশরাফী

নাহিদা আশরাফী

ঘুরে বেড়াতে প্রচণ্ড ভালোবাসেন। দেশের বাইরে নানা জায়গায় ঘুরে বেড়ালেও ঘোরাঘুরির জন্য পছন্দের স্থানগুলোর মধ্যে শীর্ষে আছে সমুদ্রকন্যা কক্সবাজার ও প্রকৃতিকন্যা সিলেট। সমুদ্র আর পাহাডের বিশালতা খুবই উপভোগ করেন। দেশের বাইরে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, নেপাল অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন।

ব্যক্তিগত জীবনে খুবই ব্যস্ত সময় কাটে এ কথাশিল্পীর। চিকিৎসক স্বামী মো. দিদারুল ইসলামের ব্যস্ততার কারণে পরিবারে বাড়তি সময় দিতে হয়। লেখালেখি নিয়ে ব্যস্ততা তো আছেই। এখন পর্যন্ত বাজারে আছে তার লেখা চারটি বই। এরমধ্যে তিনটা কবিতার, একটা গল্পের।

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ তারিখে বইমেলার শেষ দিনে মেলাতেই পালিত হয়েছে কবির ৪৩তম জন্মোৎসব। এতে উপস্থিত ছিলেন কবি মোহাম্মদ নূরুল হুদা, ছড়াকার রহীম শাহ-সহ  বাংলাদেশের প্রায় অর্ধশত প্রথিতযশা কবি ও সাহিত্যিকরা।

জন্মদিনের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে নাহিদা আশরাফী দ্য ঢাকা রিপোর্টকে বলেন, এদিন সকালটা কাটবে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে। বিকেলে বাংলাদেশ রাইটার্স ক্লাবে জন্মদিনের আয়োজনে অংশ নেবেন।

ব্যক্তিগত জীবনে নাহিদা আশরাফী বিবাহিতা এবং দুই সন্তানের জননী। কন্যা তোয়া সাইয়ারা ইসলাম ভিকারুননিসা থেকে ২০১৭ এসএসসি অংশ নেয়। ছেলে তূর দাইয়ান ইসলাম সপ্তম শ্রেণীতে পড়ছে।

দেশকে নিয়ে প্রচণ্ড আশাবাদী কবি নাহিদা আশরাফী। সমৃদ্ধ এবং উন্নত এক দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন তিনি। বিশ্বাস করেন, আমাদের সবার মধ্যে দেশপ্রেম জাগ্রত হলেই দেশটা আরও অনেক বেশি সুন্দর হয়ে উঠবে। সেই সুন্দরের প্রতীক্ষায় দিন গুনছেন এই গুণী কথাশিল্পী।

বিভাগ:জন্মদিন
Share.

Leave A Reply