লেগুনার চালকের আসনে শিশুরা

নিউজ ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: আলমের বয়স পনেরো বছর। সে পেশাদার লেগুনা (হিউম্যান হলার) চালক। তবে ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। লেগুনা চালায় ডেমরা রোডে। তার মতো শতাধিক শিশু রাজধানীর বিভিন্ন রুটে নিয়মিত লেগুনা চালাচ্ছে। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির পরিসংখ্যান মতে, রাজধানীর ১৫টি রুটের লেগুনাচালকের ৩৫ শতাংশই শিশু। যাদের বয়স ১৩ থেকে ১৮–এর মধ্যে। যাত্রাবাড়ী থেকে ডেমরা, পোস্তগোলা, জুরাইন, গুলিস্তান, মাতুয়াইল রোডে নিয়মিত লেগুনা চালাচ্ছে এসব শিশু। এ ছাড়া গুলিস্তান থেকে কেরানীগঞ্জ, আজিমপুর, খিলগাঁও রোডেও নিয়মিত লেগুনা চালাচ্ছে তারা।

ঢাকা জেলা লেগুনা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয় থেকে জানা গেছে, যাত্রাবাড়ী থেকে ডেমরা রুটে ২২০টি লেগুনা চলে। যাত্রাবাড়ী থেকে পোস্তগোলা রুটে চলে ১১৫টি। জুরাইন থেকে গুলিস্তান পর্যন্ত চলে ১০৭টি লেগুনা এবং যাত্রাবাড়ী থেকে চিটাগাং রোড পর্যন্ত চলে আরও ২০টি। এসবের অধিকাংশের চালকই শিশু।

ডেমরা রোডে এক বছর ধরে নিয়মিত লেগুনা চালাচ্ছে ইয়াসিন। তার বয়স ১৫ বছর। ইয়াসিন বলল, তার মতো অনেক শিশু ডেমরা রোডে লেগুনা চালাচ্ছে। প্রতিদিন ১ হাজার ২০০ টাকা দিতে হয় মালিককে। এই রুটে তিন বছর ধরে লেগুনা চালাচ্ছে ১৬ বছর বয়সী মাজেদ। এর আগে সে লেগুনার চালকের সহকারী হিসেবে কাজ করেছে। তার ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। পোস্তগোলা রোডে লেগুনা চালায় আমিনুর। তার বয়স ১৬ বছর। ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। সে বলল, কোনো অসুবিধা হয় না।

নাজমুল ইসলাম নামের এক লেগুনাযাত্রী বলেন, তিনি থাকেন ডেমরার স্টাফ কোয়ার্টারে। প্রতিদিন লেগুনাতে চলাচল করেন। অধিকাংশ লেগুনা চালাচ্ছে শিশুরাই। যাদের বয়স ১৫-১৬ বছর। এসব শিশু গাড়ি এত দ্রুত চালায় যে, গাড়িতে উঠলেই ভয় লাগে। কিন্তু নিরুপায় হয়ে উঠতেই হয়।

আট–দশ বছর বয়সে এসব শিশু প্রথমে লেগুনাচালকের সহকারী হিসেবে কাজ শুরু করে। কাজ করতে করতে একপর্যায়ে গাড়ি চালানোর হাত পাকা হওয়ার পর  চালকের আসনে বসে পড়ে এসব শিশু। এ ক্ষেত্রে মালিকদেরও ভূমিকা রয়েছে। পেশাদার চালক দিয়ে গাড়ি চালাতে হলে অনেক টাকা লাগে মালিকের। কিন্তু এসব শিশুকে কম টাকা দিয়ে গাড়ি চালানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)-এর সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, ২০ বছরের নিচের কোনো ব্যক্তিকে ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়া হয় না। অনেক রুটে শিশুরাই লেগুনা চালাচ্ছে। বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালত এসব শিশু চালকের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান চালিয়ে আসছে। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Share.

Leave A Reply