বিভেদ

জিন্নিয়া সুলতানা:
চম্পা কলি শিউলি ডলি
কত নামে ডাকে লোকে
রাত বিরেতে চামড়া বেচিস
ঠিক নামে কে চিনবে তোকে?

তুই হলিরে এমন জাতি
যা আছে তোর ঠুনকো সবি
ইনিয়ে বিনিয়ে তার কবিতায়
বেশ্যা বলে পাড়ার কবি।

যারে তুই লক্ষ্মী বলে
সব করিস দান তার করতলে
সেই সে পুরুষ সতী খোঁজে
নিজেকে সে মহৎ বলে।

নারী বলেই তোর এত জ্বালা
যা থাকে সব হারানোর ভয়
কে দেখে ওই দেবতাদের
চরিত্রের গোপন অবক্ষয়।

ভরা কলসি খলখলিয়ে
এদিক ওদিক জলে ভিজে,
যতসব বড় কথা বড় মাথা
নিজের দোষ কি কখনো খোঁজে?

বলিরে এত যদি সাহসী তুই
খারাপ কেন একলা নারী?
সে যদি হয় পাপের কলসি
তুই হলিরে তলা তারই।

নারী তো নয় খেলনা পুতুল
যে যা পারস বলবি মুখে
জন্মের পরে পবিত্র দুধ
কোন অভাগা দিতো তোকে?

স্নেহের পরশ দেয় যে নারী
মুখ ভরে বোন ডাকিস তারে
মেয়ে যদি হয় কলঙ্কিত
সেই পাপ কি তার বাপকে ছাড়ে?

মানুষ আমি তুইও মানুষ
সে-ও মানুষ চম্পা কলি,
আপন দোষকে রেখে ঢেকে
কি করে তাকে দোষী বলি?

সতীত্ব তো আল্লাহর দান
হোক তোর কি অন্য কারো
সবারই যায় করলে মনে
একলা তারে দুষবি আরো?

Share.

Leave A Reply