৮ মাঘ, ১৪২৪|৩ জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯|২১ জানুয়ারি, ২০১৮|রবিবার, সন্ধ্যা ৬:১৫

বাণিজ্য মেলার প্রবেশ পথে পদ্মা সেতু!

বিজনেস ডেস্ক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: পদ্মা সেতুর আদলে সাজানো হচ্ছে এবারের ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার প্রবেশদ্বার। মেলার গেটে এ সেতুকে দৃশ্যমান করে তোলার মাধ্যমে নিজেদের অর্জন আর উন্নয়নের গতি তুলে ধরতে চায় সরকার। এর পাশাপাশি বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে থাকছে মিনি সুন্দরবন।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন মেলা সচিবালয়ের সচিব এবং রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর উপ-পরিচালক (ফাইন্যান্স) মোহাম্মদ আবদুর রউফ। তিনি জানান, পদ্মা সেতু আমাদের নিজেদের অর্জনই শুধু নয়। বরং দেশের উন্নয়নে জ্বলন্ত প্রতীক এই স্থাপনা। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আমাদের এই প্রয়াস দৃশ্যমান করতেই পদ্মা সেতুর আদলে বাণিজ্য মেলার গেট করা হয়েছে।

বর্ণাঢ্য এই প্রবেশদ্বারটি নির্মাণের দায়িত্ব পেয়েছে ঢোলক কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেবাশীষ ঘোষ জানান, ইতিহাস, ঐতিহ্য আর উন্নয়নের আধুনিক গতিধারাকে প্রাধান্য দিয়ে মেলা সচিবালয়ে গেটের তিনটি ডিজাইন জমা দিয়েছিল ঢোলক কমিউনিকেশন। সেখান থেকে পদ্মা সেতুর ডিজাইনটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি যুক্ত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা গেট। সঙ্গে রয়েছে প্রবেশদ্বারের দুই পাশে সামঞ্জস্য রেখে আন্তর্জাতিকভাবে প্রাপ্ত দুটি অর্জনের প্রতীকী উপস্থিতি। এর একটি হচ্ছে ইউনেস্কো স্বীকৃত বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের প্রতিকৃতি। অন্য প্রতিকৃতিটি হচ্ছে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মাদার অব হিউম্যানিটি খেতাবপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।

ফ্ল্যাশব্যাক বাণিজ্য মেলা ২০১৭ শিশুপার্ক

ঢোলক-এর কর্ণধার দেবশীষ ঘোষ জানান, এই প্রবেশদ্বারের কাজ সম্পন্ন করতে ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকা খরচ হবে।

সাধারণভাবে মেলায় স্টল বাড়ানোর প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হলেও এবার তার উল্টোটা ঘটছে। কমছে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের স্টল। স্টল ও প্যাভিলিয়ন থাকছে ৫৪০টি প্রতিষ্ঠানের। গতবছর এ সংখ্যা ছিল ৫৮৪টি। অর্থাৎ এবার স্টল কমছে ৪৪টি।

এবারের মেলায় ডিজিটালাইজেশন বা তথ্য-প্রযুক্তিতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হবে। থাকবে ডিজিটাল এক্সপেরিয়েন্স সেন্টারের মতো সুবিধা। মেলায় অবস্থিত স্টল ও প্যাভিলিয়নের অবস্থান জানা যাবে এর মাধ্যমে। সহজেই কাঙ্ক্ষিত স্টল খুঁজে পাবেন দর্শনার্থীরা। এছাড়া প্রথমবারের মতো থাকছে অর্কিডের বাগান।

মেলা চলবে পুরো জানুয়ারি মাসজুড়ে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে মেলা প্রাঙ্গন। বড়দের জন্য জনপ্রতি ৩০ টাকা আর ছোটদের জন্য ২০ টাকা প্রবেশ ফি ধরা হয়েছে।

Share.

Leave A Reply