৩০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫|৬ রবিউস-সানি, ১৪৪০|১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮|শুক্রবার, সন্ধ্যা ৬:৫৩

সহযাত্রী

জিন্নিয়া সুলতানা:
ঘরপোড়া লাশ দেখে গা গুলিয়ে উঠলো তোমার?
কতশত মনপোড়া লাশ ফুটন্ত মগজে নেমে আসে
মাঝ রাতের নির্জন রাস্তায়
নিঃশব্দের মিছিলে একে একে মিশে যায়
মুক্তির জন্যে করে আর্তনাদ;
কখনো ওদের পায়ের শব্দে ভাঙ্গে ঘুম
কান পেতে শুনো নিঃশব্দের ভাষা?
যাদের মন পুড়ে বেরিয়ে আসছে অসন্তুষের আগুন
ঠোঁটে ব্যঙ্গাত্মক হাসি।
মায়ের ঔষধ আনতে গিয়ে যে ছেলে ঘরে ফেরেনি
এক মুঠো ভাতের জন্যে যে হলো ধর্ষিতা
ভাইয়ের ছিন্নভিন্ন লাশে হাত রেখে যে করলো শপথ, ‘এভাবে আর নয়’,
যে অবুঝ শিশু বাবাকে বুঝার আগেই হারালো বাবা
ওরা সবাই কাধে কাধ মিলিয়ে নেমে আসে
মাঝ রাতের নির্জন রাস্তায়।
একসাথে বলে উঠে,
যারা জেগে ঘুমায়
তাদের থেকে পবিত্র মাঝ রাত্রিরে ঘুমন্ত নগরী,
বেওয়ারিশ কুকুরছানা অথবা বোবা ল্যাম্পপোস্ট।
তোমার ইচ্ছে হয় তাদের সহযাত্রী হতে?
কখনো কি একা দাঁড়িয়েছিলে সেই ল্যাম্পপোস্টের নিচে
উদগ্রীব নয়নে সমাজচ্যুত এক তেজী যুবক হয়ে?
যদি আজো আসে সেই মৌন মিছিল
মিশে যাবে তাদের দলে?
নাকি নিজের কাছেই পলাতক পথিক
আজো পাওনি হৃদয়কে জাগিয়ে তোলার সাহস।
কান পেতে শুনো
মৌনতার যে ভাষা নিঃশব্দের যে শব্দ
তাতে মিশে আছে
অবোধ শিশুর কান্না
প্রেমিকার কাঁচের চুড়ি ভাঙার টুংটাং শব্দ
মায়ের চোখে অপেক্ষার প্রহরের উদগ্রীব দৃষ্টি
বাবার অসহায় করুণ অশ্রু বিসর্জন।
দেখো তোমারো আগুন ধরছে মনে
অসন্তুষ বিদ্রোহের কাটা বিধে ককিয়ে উঠছ নিমিষেই,
তুমিও হবে ওদের সহযাত্রী,
দিনের আলোয় বিদ্রোহী শ্লোগানে শ্লোগানে কাঁপিয়ে দেবে দিকদিগন্ত
অনুভবে বুঝবে তুমি একা নও
একে একে হচ্ছে সবার প্রত্যাবর্তন।
নির্বোধের দল ছেড়ে আলোর পথে, সত্যের পথে
মুক্তির জন্যে হচ্ছে একে অপরের সহযাত্রী।

Share.

Leave A Reply