৯ ফাল্গুন, ১৪২৫|১৫ জমাদিউস-সানি, ১৪৪০|২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯|বৃহস্পতিবার, দুপুর ২:৩৮

সংরক্ষিত আসনে লক্ষ্মীপুর থেকে এমপি হতে চান শেফালী সুলতানা

নিজস্ব প্রতিবেদক, দ্য ঢাকা রিপোর্ট ডটকম: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আলহাজ শেফালী সুলতানা। লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার এ কৃতি সন্তান ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের ধারাবাহিকতায় এবার জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে লক্ষ্মীপুর থেকে দলীয় সমর্থন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি।

ছাত্র জীবনে তিনি কাজী নজরুল ইসলাম সরকারী মহা-বিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সংগঠনিক রাজনীতির ছিলেন আলোচিত সভানেত্রী। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

২০০১ পরবর্তী সময় থেকে দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ঢাকা-গুলশান থানা যুব মহিলা লীগের সকল সংগঠনিক কার্যক্রম এ গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা পালন করেন। তিনি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফাদার অব ন্যাশনস রিচার্স ফাউন্ডেশন-এর মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা।

আলহাজ শেফালী সুলতানার বড় ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা বদিউজ্জামান ভুইয়ার হাত ধরে প্রথম রাজনীতি শুরু করেন লক্ষীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায়। পরবর্তী সময়ে রাজধানী ঢাকা কাজী নজরুল ইসলাম সরকারি মহাবিদ্যালয়ে ‘চাচা’ (বাবার চাচাতো ভাই) বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় নির্মম ভাবে নিহত হন।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মরহুম খোরশেদ আলম বাচ্ছুর হাত ধরে শুরু করেন।চাচার মৃত্যু পরবরর্তী সময়ে স্বামী মরহুম হাজী মোহাম্মাদ ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলম ভুইয়া তাকে রাজনৈতিক সহযোগীতা ও উৎসাহ দেন।

তার স্বামী ছিলেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ, ঢাকা মহানগর উত্তর এর সহ সভাপতি ও নির্বাহী কর্মকর্তা, বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়, ঢাকা বিভাগ। এছাড়াও লক্ষীপুর জেলা সমিতি-ঢাকা এর ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন তিনি।

দীর্ঘ দিন থেকে তিনি বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ এর সভাপতি নাজমা আকতার এর হাত ধরে যুব মহিলা লীগ এর রাজনীতিতে নিরলস কার্যক্রম পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। বিভিন্ন সামাজিক ও প্রাতিষ্ঠানিক কাজের সাথে দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি বৃহত্তম নোয়াখালী উন্নয়ন সমিতির মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা, নোয়াখালী জেলা সমিতি-ঢাকা, আজীবন সদস্য। লক্ষীপুর জেলা সমিতি-ঢাকার আজীবন সদস্য। রামগঞ্জ উপজেলা সমিতি- ঢাকা, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা। রামগঞ্জ মহিলা ফোরাম-ঢাকা, সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়া রামগঞ্জ উপজেলার সাউধের খিল উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই মেয়াদে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রয়াত স্বামী নামে গঠিত- “ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলম ভুঁইয়া স্মৃতি ট্রাস্ট” এর চেয়ারম্যান হিসাবে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের কল্যানে দীর্ঘ দিন কাজ করে যাচ্ছেন।

উক্ত ট্রাষ্ট এর নামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বিনা মুল্যে চিকিৎসা সেবা সহ বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা মাধ্যমে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বিভিন্ন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ বিরোধী দল থাকাকালিন সময় ও ১/১১সময়ে তিনি সংগঠনের গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা পালন করেন। যার কারনে বিরোধী অপশক্তির বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হন।

৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি লক্ষীপুর জেলা থেকে সংরক্ষিত নারী আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর মনোনয়ন পত্র জমা দেন। ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি লক্ষীপুর-১ রামগঞ্জ আসন থেকে আবারো মনোনয়ন পত্র জমা দেন। পরবর্তী সময়ে আবারও সংরক্ষিত নারী আসনের মনোনয়ন পত্র জমা দেন, সংরক্ষিত নারী আসন বাড়ানো হলে তিনি আবারও সংরক্ষিত নারী আসন থেকে মনোনয়ন পত্র জমা দেন। ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লক্ষীপুর-১ রামগঞ্জ আসনে মনোনয়ন পত্র জমা দেন। সর্বশেষ চলমান সংরক্ষিত নারী আসনে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন।

সর্বমোট, সংসদ নির্বাচন ও সংরক্ষিত নারী আসনে তিনি ৬ বার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন ও জমা দেন।

আলহাজ শেফালী সুলতানা বলেন, ছাত্র জীবন থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার আদর্শ ও চেতনার রাজনীতি করে যাচ্ছি। যতদিন বাঁচবো এ রাজনীতি করে যাব ইনশাআল্লাহ। মাননীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা আপার যে কোনো সিদ্ধান্ত আমাদের কাছে চূড়ান্ত। প্রত্যাশা করি, আমি মোট ৬ বার প্রানপ্রিয় সংগঠনের মনোনয়ন চেয়েছি, এবার প্রানপ্রিয় নেত্রী আমার বিষয়ে আন্তরিক বিবেচনা করে আমাকে আরো বেশী বেশী দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে কাজ করার সুযোগ দিবেন। প্রিয় সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের দোয়া ও আন্তরিক সহযোগীতা কামনা করি।

Share.

Leave A Reply